বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭:২৯

১৬ই মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

৭ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

২রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ গ্রীষ্মকাল

সেন্টমার্টিন দ্বীপ লিজ দিয়ে ক্ষমতায় থাকতে চাই না: প্রধানমন্ত্রী

সেন্টমার্টিন দ্বীপ লিজ দিলে ক্ষমতায় থাকতে কোনো অসুবিধা নেই, তবে আমি তা করবো না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আমার দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে কাউকে ছিনিমিনি খেলতে দেবো না।

সাম্প্রতিক সুইজারল্যান্ড ও কাতার সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসে প্রধানমন্ত্রী এমন মন্তব্য করেন। আজ বুধবার বেলা ১২টায় প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন গণভবনে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

উপস্থিত এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে সরকার প্রধান বলেন, ২০০১ সালে বিএনপি গ্যাস বিক্রি করার মুচলেকা দিয়ে ক্ষমতায় এসেছিল। এখন তাঁরা দেশ বিক্রি করবে নাকি সেন্টমার্টিন বিক্রি করার মুচলেকা দিয়ে ক্ষমতায় আসতে চায়। আমি এটুকু বলতে পারি, আমি জাতির পিতার কন্যা। আমার হাত থেকে এই দেশের কোনো সম্পদ কারও কাছে বিক্রি করে ক্ষমতায় আসতে চাইনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গ্যাস বিক্রির মুচলেকা দিলে আমিও ক্ষমতায় থাকতে পারতাম। এখনও যদি বলি যে, সেন্টমার্টিন দ্বীপ বা আমাদের দেশ কাউকে লিজ দেবো তাহলে আমার ক্ষমতায় থাকার কোন অসুবিধা নেই। আমি জানি সেটা। কিন্তু আমার দ্বারা সেটা হবে না।

আমার দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে আমি কাউকে খেলতে দেবো না উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, আমার দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলার অধিকার কারও নেই।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমার দেশের মাটি ব্যবহার করে কোনো জায়গায় কোন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালাবে, কাউকে আট্যাক করবে বা এই ধরণের কাজ আমরা হতে দেবো না। আমরা শান্তিতে বিশ্বাস করি, আমরা শান্তিপূর্ণ সহযোগিতায় বিশ্বাস করি।

আমরা সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব এই নীতিতে বিশ্বাস করি মন্তব্য করে তিনি বলেন, মিয়ানমার থেকে যে প্রায় ১১ লাখের মতো রিফিউজি এসেছে, আমরা তো মিয়ানমারের সঙ্গে ঝগড়া করিনি। আমরা তাঁদের সঙ্গে আলোচনা চেষ্টা চালাচ্ছি।

আরেক প্রশ্নের উত্তরে সরকার প্রধান বলেন, জনগণ ভোট দিলে ক্ষমতায় থাকবে আওয়ামী লীগ। বিএনপির মতো ভোট চুরি করবে না।

নির্বাচন কবে নাগাদ হতে পারে এমন এক প্রশ্নের উত্তরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নির্বাচন কমিশন যখন ঘোষণা দেবে তখনই আগামী জাতীয় নির্বাচন হবে, এনিয়ে টেনশনের কিছু নেই।

শেখ হাসিনা বলেন, প্রতিকূলতা মোকাবিলা করে গত ১৪ বছরে দেশের অগ্রযাত্রা আগামীতেও অব্যাহত থাকবে।

সুইজারল্যান্ড সফর নিয়ে সরকার প্রধান বলেন, রোহিঙ্গাদের দ্রুত মিয়ানমারে প্রত্যাবসনে ইউএনএইচসিআরসহ বিভিন্ন রাষ্ট্রের সহায়তা কমনা করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী গত ১৪-১৫ জুন অনুষ্ঠিত ‘ওয়ার্ল্ড অফ ওয়ার্ক সামিট: সোশ্যাল জাস্টিস ফর অল’-এ যোগদান শেষে সুইজারল্যান্ডের জেনেভা থেকে শনিবার দেশে ফিরেছেন। এছাড়া ২৩-২৫ মে কাতারের রাজধানী দোহায় অনুষ্ঠিত তৃতীয় কাতার ইকোনমিক ফোরামে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী।

চার দিনের সুইজারল্যান্ড সফরে জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশনার ইউএনএইচসিআর প্রধান ফ্লিপো গ্র্যান্ডি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এছাড়া প্যালাইস ডি নেশনসে সুইস কনফেডারেশনের প্রেসিডেন্ট অ্যালেইন বারসেটের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন তিনি।

সেখানে বাংলাদেশ ও সুইজারল্যান্ডের মধ্যে জ্ঞান ও দক্ষতা বৃদ্ধির বিষয়ে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। প্রধানমন্ত্রী এই সফরে মাল্টার প্রেসিডেন্ট জর্জ ভেলা, আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার মহাপরিচালক গিলবার্ট এফ হাউংবো, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থার মহাপরিচালক এনগোজি ওকোনজো-ইওয়েলার সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন।







© সকল স্বত্ব- সমাজ নিউজ -কর্তৃক সংরক্ষিত
২২ সেগুনবাগিচা, ৫ম তলা, ঢাকা- বাংলাদেশ।
ই-মেইল: news@somajnews.com, ওয়েব: www.somajnews.com
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

ডিজাইন: একুশে