শনিবার রাত ১:১৮

২৮শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

১২ই রবিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

১৩ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ হেমন্তকাল

ব্রাহ্মণবাড়িয়া নিয়ে কটাক্ষ করায় তুষারের বিরুদ্ধে মামলা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা নিয়ে ফেসবুকে কটাক্ষ করায় মিডিয়া ব্যক্তিত্ব আব্দুন নূর তুষারের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

মঙ্গলবার (২১ এপ্রিল) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল হোসেন রুবেল বাদি হয়ে মামলা করেন।

মামলায় তুষারসহ তিন জনের ফেসবুক পোস্ট শেয়ারকারী অজ্ঞাত আরও ৬৩৬ জনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার এজাহারে বলা হয়, গতকাল সোমবার (২০ এপ্রিল) সন্ধ্যা ৬টায় ডা. আব্দুন নূর তুষার তার ফেসবুক আইডি থেকে একটি স্ট্যাটাস দেন। স্ট্যাটাসে তিনি লেখেন ‘আজ ২০-০৪-২০২০ইং শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক‌্যাল কলেজ, বগুড়ায় করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ পরীক্ষার আরটি পিসিআর ল্যাব উদ্বোধন করা হয়। সামাজিক দূরত্বের নমুনা দেখুন। পুরো দেশটাই বি-বাড়িয়া বলদ বাড়িয়া’।

তুষার কোনো কারণ ব্যতীত ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার বি-বাড়িয়া মর্মে বিকৃত উচ্চারণে উপস্থাপন করে আইন ভঙ্গ করেছেন বলেও এজাহারে উল্লেখ করা হয়।

এজাহারে আরও বলা হয়, তুষার পোস্টে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলাকে নেতিবাচকভাবে উপস্থাপনের মাধ্যমে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার প্রায় ৩২ লাখ মানুষের মনে ক্ষোভ ও উত্তেজনা উসকে দিয়েছেন। এই পোস্টের কারণে যে কোনো সময় যে কোনো স্থানে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সন্তানদের বিবাদ ও কলহের সম্মুখীন হওয়ার পথ সুগম করে দিয়েছেন ।

২০১১ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রশাসন প্রজ্ঞাপন দ্বারা ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সংক্ষিপ্ত রূপ বি-বাড়িয়াকে আইনগতভাবে নিষিদ্ধ ও শাস্তিযোগ্য করে।

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রবিউল হোসেন রুবেল বলেন, ‘আসামিদের অপকর্মের জন্য জেলাবাসীর মতো আমিও অপমানিত ও মর্মাহত। ‘বলদ বাড়িয়া’ বলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার মানুষকে অপমান করা হয়েছে।’

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মুহাম্মদ শাহজাহান জানান, মামলার কপিটি হাতে পেয়েছি। জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে মামলাটি নথিভুক্ত করা হবে।

Comments are closed.







© সকল স্বত্ব- সমাজ নিউজ -কর্তৃক সংরক্ষিত
২২ সেগুনবাগিচা, ৫ম তলা, ঢাকা- বাংলাদেশ। মোবাইল: ০১৭১১-৩২৪৬৬০, ০১৭১৩-৫১২৫৮২।
ই-মেইল: news@somajnews.com, ওয়েব: www.somajnews.com
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি।

ডিজাইন: একুশে